আমাদের সন্তানদের সাথে শিক্ষার নামে প্রহসন হচ্ছে

অরিত্রী অধিকারীর নির্মম আত্মহুতির পর বিভিন্ন থলে থেকে বিড়াল বেরিয়ে আসতে শুরু করেছে। ভিকারুননিসা স্কুল নিয়ে অভিভাবকদের অভিযোগ, স্কুলটিতে দ্বিতীয় শ্রেণি থেকেই শিক্ষিকরা ছাত্রীদের তাদের কাছে কোচিং করার জন্য প্রলুব্ধ করেন। তৃতীয় শ্রেণি থেকে তা তীব্র আকার ধারণ করে। অভিভাবকদের সিংহভাগেরই অভিমত, তৃতীয় শ্রেণিতে উঠে একাধিক শিক্ষিকার কাছে বিষয়ভিত্তিক কোচিং না করলে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষায় নম্বর কম দেওয়া হয়। ক্লাসে না পড়িয়ে কোচিংয়ে সাজেশন দেওয়া হয়। যারা কোচিং করে তারা ভালো ফলাফল করে। ফলে অভিভাবকরা অনেকটা বাধ্য হয়েই সন্তানদের কোচিংয়ে পড়তে দেন।

ক্লাসে মার্কস কম দেওয়া এবং মেয়েটিকে বৃথা যন্ত্রণা দেওয়ার ভয়ে এতদিন কেউ মুখ খোলার সাহস পর্যন্ত দেখাতে পারেননি।

এ ছাড়াও প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ টাকার ভর্তি বাণিজ্যের কথাও শুনা যাচ্ছে। আমাদের সন্তানদের সাথে শিক্ষার নামে প্রহসন নাকি বিজনেস, আসলে কি হচ্ছে?

যে কোন স্কুলের শিক্ষক এবং শিক্ষিকা নিয়োগের পরে ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে ব্যাবহার এবং শিক্ষা দানের ক্ষেত্রে উপযুক্ত প্রশিক্ষণ দরকারি।